বঙ্গবন্ধুর ভাবনা ছিল সকল মানুষকে নিয়ে ভালো থাকা

 প্রকাশ: ০৬ জানুয়ারী ২০২১, ০১:৫১ অপরাহ্ন   |   রাজনীতি

বঙ্গবন্ধুর ভাবনা ছিল সকল মানুষকে নিয়ে ভালো থাকা

এসএম আরাফাত হাসান:

বঙ্গবন্ধুর ভাবনা ছিল সকল মানুষকে নিয়ে ভালো থাকা। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাজ করে যাচ্ছেন। এরই ফলশ্রুতিতে সারাদেশে উন্নয়ন কাজ হচ্ছে। ২০৪১ সালের মধ্যে এদেশ উন্নত দেশে পরিণত হবে। পদ্মা সেতু সম্পন্ন হলে দেশে দারিদ্রতার হার ৫ ভাগে নেমে যাবে বলে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়ে মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম এমপি।


শনিবার  (১৯ ডিসেম্বর) বিকেলে মাদারীপুরের শিবচরে ৫০০ আসন বিশিষ্ট  নুর ই আলম চৌধুরী অডিটোরিয়াম কাম মাল্টিপারপাস হলের শুভ উদ্বোধন উপলক্ষে প্রধান অতিথির বক্তব্য এসব কথা বলেন

তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে পদ্মা সেতু হচ্ছে।আশা করি অল্প সময়ের মধ্য শুভ উদ্বোধনের মাধ্যমে দুপাড়ের মানুষের মধ্য সংযোগ স্থাপিত হবে।পাশাপাশি এলাকায় শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হবে।


তিনি আরো বলেন,পদ্মা সেতু হলে অর্থনীতির বড় একটি পরিবর্তন হবে।অর্থনীতিবিদরা হিসেব করে বলেন এক পার্সেন্টের বেশী জিডিপি আমাদের বেড়ে যাবে।অর্থাৎ এক পার্সেন্ট জিডিপি যদি বাড়ে তাহলে আমাদের আজকের দারিদ্রতার হিসেবে করা হয় যে ২০ পার্সেন্ট আমরা আশা করি তখন আমাদের দারিদ্রতার হার তখন ৫ পার্সেন্ট কমে যাবে।


এসময় মন্ত্রী বলেন,' সারাদেশে ১ শত ইকোনমিক জোন গড়ে তোলা হবে। এদেশ কৃষিতে সমৃদ্ধ। কিন্তু এদেশের জনসংখ্যা প্রচুর। এত মানুষের অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য প্রচুর শিল্পকারখানা গড়ে তুলতে হবে। পদ্মাসেতুকে ঘিরে সারাদেশে অর্থনৈতিক উন্নয়ন হবে। অসংখ্য শিল্প কারখানা গড়ে তোলা হবে। শীঘ্রই চট্টগ্রামে বিশাল এক অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলা হবে যেখানে ত্রিশ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান হবে। এর মধ্য দিয়ে দেশে ১ পারসেন্ট জিডিবি বেড়ে যাবে। ফলে দেশে দারিদ্রতার হার কমে আসবে।'


স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন,'নদী খনন করে পানি ধারণের গভীরতা বজায় রাখাসহ জলবায়ু জণিত ক্ষতিরোধে ৩৮ টি প্রকল্প ইতোমধ্যে গ্রহন করা হয়েছে।'


অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূর ই আলম চৌধুরী লিটন এমপি।


মন্ত্রী এর আগে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাগ্নে, মুজিব বাহিনীর কোষাধ্যক্ষ, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক সংসদ সদস্য ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরীর (দাদা ভাই) কবর জিয়ারত,মাদারীপুর জেলা পরিষদের অর্থায়নে শিবচর পৌর এলাকায়  রেষ্ট হাউস নির্মানের যায়গা পরিদর্শন ও শিবচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের বাসভবনের ভিত্তিপ্রস্ত স্থাপন করেন।


শিবচর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল লতিফ মোল্লার সভাপতিত্বে ও

শিবচর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) এম রাকিবুল হাসানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন,স্থানীয় সরকার প্রোকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রোকৌশলী মোঃ আবদুর রশিদ খান, জনস্বাস্থ্য প্রোকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রোকৌশলী মোঃ সাইফুর রহমান,মাদারীপুর জেলা প্রশাসক ড.রহিমা খাতুন,মাদারীপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুনীর চৌধুরী,মাদারীপুর পুলিশ সুপার মাহবুব হাসান,স্থানীয় সরকার প্রোকৌশল অধিদপ্তরের তত্বাবধায়ক প্রোকৌশলী মোঃ মজিবুর রহমান সিকদার,শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আসাদুজ্জামান,

শিবচর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ শাহজাহান মোল্লা,শিবচর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ডাঃ মোঃ সেলিম শিবচর পৌর মেয়র আওলাদ হোসেন খান,,উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বিএম আতাউর রহমান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফাহিমা আক্তার মাদারীপুর জেলা পরিষদ সদস্য আয়েশা সিদ্দিকা মুন্নীসহ অন্যান্নরা।


রাজনীতি এর আরও খবর: