শিক্ষক পরিবারের সন্তান ডিআইজি নুরে আলম মিনা যেভাবে প্রতিষ্ঠা করলেন আরপিএমপি পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ

 প্রকাশ: ২৪ জুন ২০২৪, ০৯:০০ অপরাহ্ন   |   শিক্ষা

শিক্ষক পরিবারের সন্তান ডিআইজি নুরে আলম মিনা  যেভাবে প্রতিষ্ঠা করলেন আরপিএমপি পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ



হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ  সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা  ২০১২ সালে উওরবঙ্গের প্রাচীন জনপদ রংপুরকে "সিটি কর্পোরেশন " এবং ২০১৮  সালে  মেট্রোপলিটন  পুলিশ উপহার  দেন। রংপুর  বিভাগ ও মেট্রোপলিটন পুলিশ গঠনের পর থেকে রংপুরের বিভিন্ন সরকারি -বেসরকারি  অফিস চালুর সাথে সাথে জীবনযাত্রা, যোগাযোগ ও শিক্ষার জন্য আশপাশের  অঞ্চলের মানুষ  ব্যাপকভাবে রংপুরমুখী হয়ে পড়ে।  সরকারি -বেসরকারি  পর্যায়ে যে  কয়টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আছে সেগুলো  চাহিদার তুলনায়  অপ্রতুল। রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ  একটি মানসম্পন্ন শিক্ষা  প্রতিষ্ঠানের স্বপ্ন দেখেন রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের প্রথম কমিশনার  মোহাঃ আবদুল আলীম মাহমুদ বিপিএম । কিন্তু  বদলীজনিত কারণে তিনি বাস্তবায়ন করতে পারেননি। দ্বিতীয় পুলিশ কমিশনার হিসেবে ৩১ জুলাই-২০২২ সালে রংপুর মহানগরে যোগদান করেন বাংলাদেশ পুলিশের  আরেক সাহসী কর্মকর্তা  নুরে আলম মিনা বিপিএম (বার) , পিপিএম । যোগদানের পরপরই পূর্বসুরীর স্বপ্নকে বাস্তবে রূপায়িত করার কঠিন  চ্যালেঞ্জ নিজের  কাঁধে তুলে নেন। প্রশাসনিক অনুমোদন  নিয়ে  ২৪ ডিসেম্বর ২০২২ সালে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ লাইন্সের পার্শে কোলাহলমুক্ত একটি ব্যতিক্রমধর্মী  বিশেষায়িত  শিক্ষা  প্রতিষ্ঠান  'আরপিএমপি  পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ, রংপুর প্রতিষ্ঠা করেন এবং আরপিএমপি  পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে দ্বিতীয় পুলিশ কমিশনার হিসেবে রংপুর মহানগরে রচনা করেন এক অনন্য ইতিহাসের । জমি, ভবন,সিলেবাস, কারিকুলাম, শিক্ষক নিয়োগ,  একাডেমিক কার্যক্রম - এককথায় নগরের আইনশৃঙ্খলা রক্ষার বাইরে তার মনোজগৎ আচ্ছন্ন থাকে যে ভাবনায় তা হল  আরপিএমপি পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ। অভিজ্ঞতা  সম্পন্ন ব্যক্তিত্ব প্রফেসর মোঃ ফজলুল হককে অধ্যক্ষ হিসেবে  নিয়োগ  প্রদান করেন। প্রফেসর মোঃ ফজলুল হক কারমাইকেল  কলেজ, রংপুর,  পাবনা সরকারি মহিলা কলেজ এবং  সরকারী  বেগম রোকেয়া কলেজ,  রংপুরএ অধ্যক্ষের দায়িত্ব  পালনন করেন। এরপর ২৮-১২-২০২২ সাল পর্যাপ্ত  সংখ্যক শিক্ষক নিয়োগ প্রদান করেন এবং ২০২৩ সাল থেকে প্রথম পর্যায়ে নার্সারি থেকে সপ্তম  শ্রেণী পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানটির একাডেমিক কার্যক্রম শুরু করেন। আরপিএমপি পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ একজন চৌকস,  দক্ষ, অভিজ্ঞ ও সুযোগ্য পুলিশ প্রশাসক  নুরে আলম মিনা বিপিএম( বার) পিপিএম,  পুলিশ কমিশনার, রংপুর মেট্রোপলিটন  পুলিশ এর সুচিন্তার ফসল। তিনি একজন শিক্ষক পরিবারের সন্তান। তিনি  যেখানেই সু্যোগ পেয়েছেন সেখানেই   শিক্ষার প্রসার  ঘটিয়েছেন স্বতঃস্ফূর্তভাবে। 

নুরে আলম মিনা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে  অর্থনীতি বিভাগে বিএসএস(সম্মান),  এমএসএস সম্পন্ন এবং ২০তম বিসিএস এর মাধ্যমে ২০০১খ্রি. বাংলাদেশ পুলিশ  বাহিনীতে সহকারী পুলিশ সুপার পদে যোগদান করেন। ২০১২খ্রি.সুনামগঞ্জ জেলার পুলিশ  সুপার থাকাকালীন সেখানে একটি  শিক্ষা  প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন এবং ২০১৬ খ্রি. সিলেট জেলার পুলিশ সুপার থাকাকালীন সেখানে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলে যা আজও  অত্যন্ত সুনামের সহিত  পরিচালিত  হচ্ছে। কি করলে প্রতিষ্ঠানটি শিক্ষাদানে অগ্রগামী  হবে সে বিষয়ে  নির্দেশনা দান করতেন। প্রতিষ্ঠানটিকে নান্দনিক  রূপদানের নিমিওে তিনি বিভিন্ন কর্মসূচি  হাতে নিয়েছিলেন যেমন-চারিদিকে ফুলের গাছ রোপন,  প্রতিষ্ঠানের দক্ষিণ  পার্শে মুক্ত  মঞ্চ স্থাপন ও মাঠ প্রশস্ত করণ ,  শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের  জন্য  আলাদা গ্র ন্থাগার, বিজ্ঞানাগার,বঙ্গবন্ধু  কর্ণার,  শেখ রাসেল  ডিজিটাল  ল্যাব,  সুসজ্জিত  শ্রেণীকক্ষ, ক্যান্টিন,অভিভাবকদের  বিশ্রামাগার,  পরিস্কার - পরিচ্ছন্ন টয়লেট ব্যাবস্থা, অধ্যক্ষের কক্ষ ও শিক্ষকগনের কমনরুম সুসজ্জিত করণ, নিরাপদ  বৈদ্যুতিক ব্যবস্থা স্থাপন, শিক্ষক- শিক্ষার্থীদের  চিকিৎসার ব্যবস্থাকরণ, শিক্ষক  -শিক্ষার্থীদের  নিরাপদ ট্রাফিকের ব্যবস্থাকরণ, তথ্যপ্রযুক্তির সাথে সমপৃক্ত থাকার নিমিত্তে ল্যাপটপ প্রদান, শিক্ষার্থীদের  জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা  বিকাশের নিমিওে বিভিন্ন  দর্শণীয় স্থান পরিদর্শনের ব্যবস্থাকরণ, শিক্ষক ও স্টাফদের  থাকার জন্য  স্বল্প মূল্যে কোয়ার্টার ব্যবস্থাকরণ,শিক্ষক-শিক্ষার্থীর  নামাজের জন্য নামাজঘরের ব্যবস্থাকরণ, ইদ উপলক্ষে শিক্ষক -কর্মচারীদের  উপহার হিসেবে একসেট  ইউনিফর্ম প্রদান ইত্যাদি।  স্যারের প্রত্যক্ষ পৃষ্ঠপোষকতায় '২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস-২০২৩' উপলক্ষে জেলা  প্রশাসন, রংপুর কর্তৃক আয়োজিত  কুচকাওয়াজ ও ডিসপ্লে  অনুষ্ঠান প্রথম বছরেই ৪র্থ স্থান অর্জন করার গৌরব  অর্জন করে। এই প্রতিষ্ঠান স্থাপনে সে সময় পুলিশ কমিশনার মহোদয়ের দিক নির্দেশনায় যারা সারথি ছিলেন তার মধ্যে যাদের নাম উল্লেখযোগ্য তারা হলেন-রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের  অতিরিক্ত  পুলিশ  কমিশনার,    মোঃ সায়ফুজ্জামান ফারুকী ও   উওম কুমার পাল পিপিএম, উপ-পুলিশ কমিশনার (অতিরিক্ত ডিআইজি)  মো: আবু বকর সিদ্দীক ও  মোঃ কাজী মুত্তাকী ইবনু মিনান, উপ-পুলিশ কমিশনার জনাব মো: আবু মারুফ হোসেন,  মো: আবু সাইম,  মো: মেনহাজুল আলম সহ অতিরিক্ত  উপ-পুলিশ কমিশনারবৃন্দ, সহকারী পুলিশ কমিশনারবৃন্দ। পরবর্তীতে  নুরেআলম মিনা বিপিএম (বার),পিপিএম মহোদয় বদলীজনিত কারণে চট্রগ্রামে আসেন এবং বর্তমানে পুলিশ কমিশনার  মোঃ মনিরুজ্জামান বিপিএম (বার) পিপিএম (বার) আরপিএমপি পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজের উন্নয়নে দিক-নির্দেশনা প্রদান করছেন।


কালের আবর্তনে সময়ের বিবর্তনে আমরা সবাই হারিয়ে যাবো, আমাদের সৃষ্টিশীল কর্মগুলি আজন্ম স্মৃতির স্মারক হয়ে থাকবে। যেমনটি বেগম রোকেয়ার পূণ্যভূমি রংপুরে আরপিএমপি পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ ইতিহাস হয়ে শিক্ষার আলো ছড়াবে এবং আলোকিত করবে রংপুর মহানগরবাসীকে ।

শিক্ষা এর আরও খবর: